ঝিনাইদহে তিন দিন ব্যাপি ঐতিহ্যবাহী চড়ক উৎসবের সমাপ্তি জলজ্যান্ত মানুষের পিঠে বড়শি গেঁথে শুন্যে ঘুরলো একে একে ওরা ৫ সন্যাসী

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) থেকে ঃ
সোমবার ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ফতেপুর বকুলতলা বাজারে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে তিন দিন ব্যাপি ঐতিহ্যবাহী চড়ক পুজার মেলা শেষ হয়েছে। হিন্দু সম্প্রদায়ের এই মেলার সভাপতি সাধন কুমার জানান,ইংরেজী শাসন আমল থেকে এই চড়কপুজার উৎসব চলে আসছে। আমাদের বাপ দাদারাও এই উৎসব পালন করে গেছে। তাই তাদের দেখাদেখি আমরাও এই উৎসবটি আনান্দের সাথে পালন করে থাকি। মেলা শুরু হয় পহেলা বৈশাখ থেকে চলে তিন দিন। মেলার প্রধান আকর্ষন শেষ দিনে চড়কপুজা উপলক্ষে হিন্দু ধর্মীয় কিছু লোক সন্যাসী সেজে পিঠে লোহার বড়শি ফুটিয়ে চড়ক গাছে তুলে রশির সাথে বেঁধে ঘুরানো। এবার একে একে ৫ জনসন্যাসীকে এইভাবে পিঠে বড়শি ফুটিয়ে চড়ক গাছে তুলে ঘুরানো হয়েছে। এবার যারা সন্যাসী সেজেছে তারা হলেন, শ্রী অসিত কর্মকার (মনা),অধীর হালদার,মহাদেব হালদার,বসুরেফ বাবু রায় ও বিপ্লব কর্মকার। জায়গা সল্পতার কারনে আগের তুলনায় লোকের সমাগম অনেক কমে গেছে। তারপরও প্রায় অর্ধ লক্ষ লোকের সমাগম হয়েছে। নারী-পুরুষ সবায় মিলে এ মেলা উপভোগ করেন । চড়কপাক দেয়া হয় বিকাল ৪টা থেকে আবার সন্ধার আগেই তা শেষ হয়ে যায় মেলার সভাপতি আরো জানান, তারা এই চড়ক মেলায় সন্যাসীদের পিঠে বড়সি ফুটিয়ে চড়ক গাছে তুলে ঘুরানোকে হিন্দু ধর্মীয় চড়কপুজা হিসেবে পালন করে থাকে। তাই প্রতি বছর ফতেপুর বকুলতলা বাজারে এই অনুষ্ঠান পালন হয়ে থাকে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে হিন্দু সম্প্রদায় ও অন্যান্য ধর্মের লোকজন এই মেলা দেখতে আসে। এমনকি পাশ্ববর্তী রাষ্ট্র ভারত থেকে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন এই মেলা উপভোগ করতে আসে। এছাড়া মেলায় বিভিন্ন ধরনের দোকান পাসারী বসিয়ে মেলাকে জমজমাট করে তুলেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here